বাগেরহাটে ইকোপার্কের ঝুপড়িঘরে কপোত-কপোতীর মিলনমেলা – Latest breaking news in bangla ৷ channel26

বাগেরহাটে ইকোপার্কের ঝুপড়িঘরে কপোত-কপোতীর মিলনমেলা

admin
প্রকাশিত নভেম্বর ১৮, ২০২১
বাগেরহাটে ইকোপার্কের ঝুপড়িঘরে কপোত-কপোতীর মিলনমেলা

শেখ আনিসুর রহমান (বাগেরহাট প্রতিনিধি) : বাগেরহাটের রনজিৎপুরের বেসরকারী বিনোদন কেন্দ্র চন্দ্রমহল ইকোপার্কের ভিতরেই তৈরী করা হয়েছে একাধিক ছোট্ট ঝুপড়ী ঘর ৷ বিনোদন কেন্দ্রে ঘুরতে আসা প্রেমিক-প্রেমিকাদের নিরাপদ আশ্রয় এই ঝুপড়িগুলি ৷ পার্কে ঘুরতে আসা দর্শনার্থীদের চোখ এড়িয়ে সহজেই সেখানে অনৈতিক কাজকর্মে জড়িয়ে পড়েন তারা ৷ এতে এলাকার ভাবমূর্তি বিনষ্ট হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন সচেতন মহল ৷

জানা গেছে, ২০০৬ সালে স্থানীয় শিল্পপতি সৈয়দ আমানুল হুদা সেলিম প্রায় ১১.৯৩ একর জমির উপর বেসরকারী বিনোদন কেন্দ্র চন্দ্র মহল ইকোপার্ক নামের একটি পার্ক নির্মাণ করেন। তবে সোমবার সকালে খুলনা র‌্যাব-৬ ও বন্যপ্রাণী ব্যাবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ খুলনা এর যৌথ অভিযানে বিপুল পরিমানে অবৈধ ভাবে মজুদ করে রাখা প্রাণীর চামড়া ও বন্যপ্রাণী উদ্ধার করে জব্দ করা হয় । এর মধ্যে হরিণের চামড়া ০৬টি, ভাল্লুকের চামড়া ০১টি, কুমির ০১টি, ক্যাঙ্গারুর চামড়া ০১টি, তিমির কংকাল ০১টি, অষ্টেলিয়ান ঘু ঘু ০৫টি, হরিণের শিং ০৬টি, উট পাখি ০৬টি, ময়ুর ০১টি, মাছমুড়াল পাখি ০২টি, বক ০৭টি, বানর ০৫টি ও কচ্ছপ ০২টি জব্দ করেন। উপরোক্ত চামড়া ও বন্যপ্রাণীর কোন বৈধ কাগজপত্র না থাকার কারণে বন্যপ্রাণী সংরক্ষন আইন ২০১২ এর ৩৭(২) ৪০. ৩৪(খ). ২৪ এর অপরাধে কর্তৃপক্ষকে ৫০হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১ বছরের কারাদন্ড প্রদান করা হয় । জনমনে প্রশ্ন উঠেছে এতদিন তিনি কি ভাবে কোন বৈধ কাগজপত্র ছাড়াই চামড়া ও বন্যপ্রাণী রাখলেন ।
এ বিষয়ে ২০১২সালের ৬ মে খানপুর ইউনিয়ন পরিষদের তৎকালীন চেয়ারম্যান মরহুম মোঃ আমির আলী তরফদার বন ও পরিবেশ মন্ত্রনালয়ের সচিব বরাবর একটি আবেদন ও একই সাথে পার্কের ব্যাবস্থাপককে অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধে কারণ দশানো নোটিশ প্রদান করেন। ঐ নোটিশে বলা হয়েছিল পার্কের ভিতর অধিক মুনাফার আসায় পার্কে লেকে ছোট ছোট কামরা তৈরী করিয়া ফি এর বিনিময়ে যুবক-যুবতিদের একান্তে অবস্থানের ব্যাবস্থা করিয়া পার্ক কর্তৃপক্ষ যুব সমাজকে বিপথগামী করিয়া এলাকার সমাজিক পরিবেশ চরম ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ সহ যুব সমাজকে ধ্বংস ও বিভিন্ন অপরাধমুলক কার্যে লিপ্ত থাকার অনুপ্রেরনা যোগাচ্ছেন। এর পরে দীর্ঘ ৯ বছর অতিবাহিত হলেও পার্ক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে কেউ কোন ব্যাবস্থাই নেয়নি বলে জানাগেছে ৷