রুশ সেনাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান ইউক্রেনের – Latest breaking news in bangla ৷ channel26

রুশ সেনাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান ইউক্রেনের

Jakir Hossain
প্রকাশিত মার্চ ১৫, ২০২২
রুশ সেনাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান ইউক্রেনের

 

বিদেশ ডেস্ক:

ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনে অংশ নেওয়া রুশ সেনাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানিয়েছে কিয়েভ। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার ভোরে অনলাইনে পোস্ট করা একটি ভিডিও বার্তায় এই আহ্বান জানিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস।

ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, ‘ইউক্রেনের জনগণের পক্ষ থেকে আমি আপনাদের একটি সুযোগ দিচ্ছি। বেঁচে থাকার সুযোগ। আপনারা যদি আমাদের বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করেন, তাহলে আমরা আপনাদের সঙ্গে মানুষের সঙ্গে যেভাবে আচরণ করা উচিত, সেভাবে শোভনীয় আচরণ করবো।

তিনি বলেন, রাশিয়া ইতোমধ্যেই ৯০টি যুদ্ধবিমান হারিয়েছে। রুশ সেনারা ‘এমন প্রতিরোধ আশা করেনি। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট বলেন, তার দেশ সম্পর্কে রাশিয়ায় কয়েক দশক ধরে যে মিথ্যাচার চালানো হয়েছে, রুশ সেনারা সেই প্রপাগান্ডা বিশ্বাস করে ফেলেছে।

ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, ‘রাশিয়ান কনস্ক্রিপ্টরা! আমার কথা খুব মনোযোগ দিয়ে শুনুন। রাশিয়ান অফিসাররা! আপনারা ইতোমধ্যেই সবকিছু বুঝতে পেরেছেন। মানুষের জীবন নেওয়া ছাড়া আপনারা ইউক্রেন থেকে কিছুই নিতে পারবেন না। আপনাদের জীবনও কেড়ে নেওয়া হবে। তবে আপনারা কেন মরবেন? কিসের জন্য? আমি জানি আপনারা বাঁচতে চান।’

ইন্টারসেপ্টে রুশ সেনাতের কথোপকথন ইউক্রেন শুনছে বলেও দাবি করেন জেলেনস্কি। তিনি বলেন, ‘আমরা শুনছি আপনারা সত্যিই এই নির্বোধ যুদ্ধ সম্পর্কে, এই অসম্মান সম্পর্কে এবং আপনাদের রাষ্ট্র সম্পর্কে কী ভাবছেন। আপনাদের পারস্পরিক কথোপকথন, পরিবারের সদস্যদের কাছে আপনাদের ফোনকল। আমরা এর সবই শুনছি।

ইউক্রেনের পক্ষ থেকে রুশ সেনাদের প্রতি আত্মসমর্পণের আহ্বান এটিই প্রথম নয়। দুই সপ্তাহ আগেই ইউক্রেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওলেক্সি রেজনিকভ আত্মসমর্পণ করলে রুশ সেনাদের সাধারণ ক্ষমার পাশাপাশি নগদ অর্থ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন।

গত ১২ মার্চ এক সংবাদ সম্মেলনে জেলেনস্কি দাবি করেন, ১১ মার্চ একদিনেই অর্ধসহস্রাধিক রুশ সেনা আত্মসমর্পণ করেছে। তার দাবি, এদিন প্রায় ৫০০ থেকে ৬০০ রুশ সেনা ইউক্রেনীয় বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছে। তিনি বলেন, মানুষের ‘মাথা ও মন দখল করা সম্ভব নয়’ এবং শহরগুলোতে রুশ দখলদারিত্ব হবে শুধু সাময়িক, চিরদিনের জন্য নয়। এ ব্যাপারে তার আত্মবিশ্বাস রয়েছে।