বোমাবাজি, সংঘর্ষ, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির সম্মেলন পন্ড – Latest breaking news in bangla ৷ channel26

বোমাবাজি, সংঘর্ষ, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির সম্মেলন পন্ড

Jakir Hossain
প্রকাশিত এপ্রিল ১৫, ২০২২
বোমাবাজি, সংঘর্ষ, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির সম্মেলন পন্ড

 

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:

সিদ্ধিরগঞ্জে দফায় দফায় হামলা, ককটেল বিস্ফোরণ ও সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির সম্মেলন পন্ড হয়ে গেছে। শুক্রবার সকাল ১০ টায় সিদ্ধিরগঞ্জের গ্র্যান্ডতাজ পার্টি সেন্টারে এ সম্মেলন হবার কথা ছিল। হামলা ও সংঘর্ষে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক মনিরুল ইসলাম রবিসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে।

সংঘর্ষে পার্টি সেন্টারটির প্রধান ফটক, চেয়ার টেবিল ব্যাপক ভাঙচুর করা হয়। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সির ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে এই হামলা ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে প্রত্যক্ষদর্শীরা। কাউন্সিলর ইকবাল হোসেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের বিএনপির সাবেক গিয়াস উদ্দিনের একান্ত সহযোগী ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির সদস্য। সম্মেলন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা ছিল বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক (ঢাকা বিভাগ) বেনজীর আহমেদ টিটু। জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক মনিরুল ইসলাম রবি ও সদস্য সচিব মামুন মাহমুদের সিদ্ধিরগঞ্জ থানা এলাকার বাসিন্দা। সম্মেলনে জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবি বারংবার সংঘর্ষ থামানোর চেষ্টা করলেও হামলাকারীরা সম্মেলনে আসা সাধারণ নেতা-কর্মীদের উপর লাঠি-সোটা ও লোহার রড নিয়ে উপর ঝাপিয়ে পড়ে।

সম্মেলনে আসা সাধারণ নেতা-কর্মীরা জানায়, দীর্ঘদিন যাবত সিদ্ধিগঞ্জ থানা বিএনপির কোন কমিটি নেই। কয়েকদিন পর পর পরিবর্তন হওয়া এবং একাধিক আহ্বায়ক কমিটি দিয়েই বিচ্ছিন্নভাবে চলছিলো সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির কার্য্যক্রম। ফলে বর্তমান জেলা বিএনপি সিদ্ধিরগঞ্জ থানা কমিটির উদ্যোগ নেয়। যার সম্মেলন হওয়ার কথা ছিলো আজ শুক্রবার । সকাল সাড়ে ৯ টায় জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদের সমর্থক থানা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজের নেতৃত্বে একটি মিছিল সম্মেলনস্থলে স্লোগান নিয়ে প্রবেশ করার পরপরই তাদের উপর চড়াও হয় গিয়াসউদ্দিন বলয়ের নেতা-কর্মীরা।

এসময় নাসিক কাউন্সিলর ইকবাল হোসেন,আলী আকবর, মোঃ জুয়েল প্রধান, আইয়ুব আলী মুন্সি, হালীম জুয়েল, যুবদলের ইকবাল, তৈয়ব, মাহাবুব, রিপন, সালাউদ্দিনসহ ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী বাহিনী একাধিক ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে সংঘর্ষস্থলে হামলা চালায় বলে জানায় সম্মেলনে আসা সাধারণ নেতা-কর্মীরা। হামলাকারীদের লাঠি-সোটা, লোহার রডের আঘাতে জেলা বিএনপির ভাপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবি, থানা বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুল হাই রাজু, সদস্য সচিব শাহ আলম, যুগ্ম-আহ্বায়ক রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজসহ ১০ নেতাকর্মী আহত হয়। এতে ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে সম্মেলনস্থলে আসা সাধারণ নেতা-কর্মীরা। এসময় তারা দিকবিদিক ছুটাছুটি করতে থাকে। আতংক ছড়িয়ে পড়ে ঘটনাস্থলের চারপাশে।

সাবেক সংসদস্য গিয়াস উদ্দিনের কর্মী-সমর্থকরা জানায়, সম্মেলনে সাবেক সংসদ সদস্য গিয়াস উদ্দিন ও তার অনুগত কোন নেতাকর্মীদের দাওয়াত দেয়া হয়নি। এমনকি তাদেরকে কোন কমিটিতে রাখা হবে না বলে তারা অবগত হয়েছেন। এর মধ্যে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির সম্মেলনের দিনক্ষন ঠিক করা হলেও স্থানীয় নেতাকর্মীদের জানানো হয়নি বলে অভিযোগ উঠে। তারা আজ সকাল থেকেই সম্মেলনস্থলে অবস্থান নেন এবং কেন্দ্রীয় নেতাদের তারা বিষয়গুলো অবহিত করবেন বলে জানান।

জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক মনিরুল ইসলাম রবি জানান, একটি মহলের অতর্কিত হামলার কারণে সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছে। পরিস্থিত বর্তমানে শান্ত রয়েছে। জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মামুন মাহমুদ জানান,ওরা গত নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করেছে, আওয়ামীলীগ ঘেঁষা। পরিকল্পিতভাবে সম্মেলনকে পন্ড করতে আওয়ামীলীগের ছত্রছায়ায় সন্ত্রাসী কায়দায় লাঠি-সোটা ও রড দিয়ে বিএনপির সাধারণ নেতা-কর্মীদের উপর হামলা করা হয়েছে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির সদস্য কাউন্সিলর ইকবাল জানান, এখানে নেতাকর্মীরা দীর্ঘদিন ধরে বঞ্চিত দলীয় পদ পদবি থেকে। কোন কর্মসূচি থাকলেও নেতাকর্মীদের জানানো হয় না। আজ থানা বিএনপির সম্মেলনের ব্যাপারেও নেতাকর্মীদের কাউকে জানানো হয়নি। এতে ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ করতে গিয়ে নেতা-কর্মীরা সম্মেলন পন্ড করে দেয়।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান জানান, এটি তাদের অভ্যন্তরীণ একটি প্রোগ্রাম ছিল। সেখানে নিজেদের মধ্যে সমস্যা থাকতে পারে। এখন পর্যন্ত আমরা কোনো অভিযোগ পাইনি।